কাঁঠালিয়ায় সবুজ সুরক্ষার আহবানের মধ্যদিয়ে ‘সবুজ উপকূল’ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত

আওরাবুনিয়া মডেল হাইস্কুলের কর্মসূচিতে স্বেচ্ছাসেবক দল

কাঁঠালিয়া, ঝালকাঠি, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭: উৎসবমূখর পরিবেশে ঝালকাঠির প্রান্তিক জনপদ কাঁঠালিয়ার আওরাবুনিয়ায় অনুষ্ঠিত হলো ‘ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক সবুজ উপকূল ২০১৭’ কর্মসূচি। মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) আওরাবুনিয়া মডেল হাইস্কুলে এ অনুষ্ঠানে উপকূলের পড়ুয়াদের প্রতি সবুজ সুরক্ষার আহবান জানান ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হকসহ বিশিষ্টজনেরা।

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় এই কর্মসূচির আয়োজন করে উপকূল বিষয়ক সৃজনশীল প্রতিষ্ঠান ‘উপকূল বাংলাদেশ’। উপকূলের পড়ুয়াদের মাঝে পরিবেশ সচেতনতা বাড়ানো, সৃজনশীল মেধার বিকাশ, লেখালেখি চর্চার মাধ্যমে তথ্যে প্রবেশাধিকারসহ জীবন দক্ষতা বাড়ানো এই কর্মসূচির অন্যতম লক্ষ্য।

কর্মসূচির আওতায় ছিল রচনা লিখন, পত্র লিখন, ছবি আঁকা ও সংবাদ লিখন প্রতিযোগিতা। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। কর্মসূচিতে বিদ্যালয়ের একদল পড়–য়া পরিবেশ পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে তথ্যভিত্তিক প্রতিবেদন উপস্থাপন করে। বিদ্যালয়ে প্রকাশিত হয় দেয়াল পত্রিকা ‘বেলাভূমি’র বিশেষ সংখ্যা। কর্মসূচির আওতায় বিদ্যালয়ের আশাপাশে গাছের চারা রোপণ করা হয়। সকালে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা ঘটে।

অনুষ্ঠানে ‘এসো সবুজের আহŸানে, গড়ি সবুজ উপক‚ল’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, উপকূল সুরক্ষায় আগামী প্রজন্মকে এগিয়ে আসতে হবে। উপকূল অঞ্চল বিভিন্ন ধরণের প্রাকৃতিক দুর্যোগের শিকার। ঝড়-জলোচ্ছ¡াস এ অঞ্চলে প্রতি বছর হানা দেয়। এইসব কারণে আজকের পড়–য়ারা ঝুঁকির মুখে আছে। শিক্ষা ক্ষেত্রে তাদের রয়েছে নানান সমস্যা। এইসব সমস্যা মোকাবেলায় আগামী প্রজন্মকে এগিয়ে আসতে হবে। শুধু গাছ লাগানো নয়, এর পাশাপাশি চারপাশের পরিবেশ রক্ষায় সজাগ হতে হবে। পরিবেশ ও ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। লেখালেখির মধ্যদিয়ে শিক্ষার্থীরা অনেক তথ্য আহরণের পাশাপাশি সচেতন হয়ে উঠতে পারে।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক। বিশেষ অতিথি ছিলেন কাঁঠালিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরীফ মো. ফায়েজুল আলম, উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া শিকদার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. এমাদুল হক মনির, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাতেমা খাতুন, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক বরিশাল শাখার ব্যবস্থাপক এইচ এ সায়েম, উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাহাবুবর রহমান, আওরাবুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান লিটন, শৈলজালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাহামুদ হোসেন রিপন, বেতাগী থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক বিশখালী’র সম্পাদক সালাম সিদ্দিকী, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নূরুল হক চান, ফরেস্টার আলমগীর হোসেন প্রমূখ। ভেন্যু বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুশীল চন্দ্র মিস্ত্রি অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

অনুষ্ঠান সূচনা ও উপস্থাপনায় ছিল ভেন্যু বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী সাবরিনা ইমাম ও সানজিদা আক্তার। সূচনা বক্তব্য তুলে ধরেন সবুজ উপকূল কর্মসূচির স্থানীয় সংগঠক ও দৈনিক সমকাল প্রতিনিধি ফারুক হোসেন খান। কর্মসূচির প্রেক্ষাপট ও উপকূলের সার্বিক অবস্থা নিয়ে কথা বলেন, সবুজ উপকূল ২০১৭ কর্মসূচির কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী ও আয়োজক প্রতিষ্ঠান ‘উপকূল বাংলাদেশ’-এর পরিচালক উপক‚ল-সন্ধানী সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম মন্টু। এরআগে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে বক্তব্য তুলে ধরে বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর সাবরিনা ইমাম।

অনুষ্ঠানের শুরুতে সবুজ উপক‚ল ২০১৭ কর্মসূচির ব্যানার নিয়ে একটি শোভাযাত্রা বিদ্যালয়ের আশপাশের এলাকা প্রদক্ষিণ করে। অনুষ্ঠানে পরিবেশ পর্যবেক্ষণ দলের পক্ষ থেকে পরিবেশ প্রতিবেদন উপস্থাপন করে ৯ম শ্রেণীর জিনাত মেহেরীন। এই পর্যবেক্ষণ দলটি বিদ্যালয়ের নিকতবর্তী এলাকায় একটি বধ্যভ‚মি ও গুচ্ছগ্রাম পরিদর্শন করে এবং এ বিষয়ে বিস্তারিত প্রতিবেদন তৈরি করে।

গাছের চারা বিতরণ ও রোপণের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের প্রথম অংশ শেষ হয়। দ্বিতীয় অংশ ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে আয়োজক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সঙ্গীত ও নৃত্য পরিবেশন করে।

কর্মসূচিতে সহ-আয়োজক হিসাবে থাকছে উপক‚লের স্কুল পড়–য়াদের সংগঠণ আলোকযাত্রা দল, আইটি পার্টনার হিসাবে থাকছে ডটসিলিকন, মিডিয়া পার্টনার হিসাবে থাকছে এটিএন বাংলা ও দৈনিক সমকাল।

এবার উপক‚লের ১৪টি জেলার ১৯টি উপজেলার ২০টি স্থানে এ কর্মসূচির আয়োজন করা হবে। পাইকগাছায় তৃতীয় কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হলো। এরআগে এবার সাতক্ষীরার শ্যানগরের মুন্সীগঞ্জ ও গাবুরায় পৃথক দু’টি কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। এবার

এবার সমগ্র উপক‚লে ২০টি কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এসব কর্মসূচিতে ১০০ স্কুলের প্রায় ৭০ হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেবে। এ নিয়ে তিন বছরে উপক‚লের ২৫৬টি স্কুলে ১ লাখ ৭০ হাজার শিক্ষার্থী সবুজ উপকূল কর্মসূচির আওতায় আসছে। স্কুল শিক্ষার্থীরা পেয়েছে পরিবেশ সচেতনতার বার্তা, যা তাদের প্রাত্যহিক জীবনে কাজে লাগছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সাল থেকে সবুজ উপকূল কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে। ২০১৫ সালে ১০টি জেলার ১৩টি উপজেলার ৪০টি স্কুলের প্রায় ২০ হাজার শিক্ষার্থী এই কর্মসূচিতে যুক্ত হয়। পরের বছর ২০১৬ সালে ১৪টি জেলার ২৫টি উপজেলার ১১৬টি স্কুলের প্রায় ৮০ হাজার শিক্ষার্থীকে এ কর্মসূচির আওতায় আনা হয়েছে। এবারের কর্মসূচি বাস্তবায়িত হলে তিন বছরে উপকূলের ২৫৬টি স্কুলে ১ লাখ ৭০ হাজার শিক্ষার্থী সবুজ উপকূল কর্মসূচির আওতায় আসবে।

//প্রতিবেদন/১৯০৯২০১৭//

রফিকুল ইসলাম মন্টু

রফিকুল ইসলাম মন্টু

উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক। বাংলাদেশের সমগ্র উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার জুড়ে তার পদচারণা। উপকূলীয় ১৬ জেলার প্রান্তিক জনপদ ঘুরে প্রতিবেদন লিখেন। পেশাগত কাজে স্বীকৃতি হিসাবে পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেকগুলো পুরস্কার।
পাঠকের মন্তব্য