স্থানীয় বিশিষ্টজনদের মূল্যায়নে সবুজ উপকূল কর্মসূচি

সবুজ উপকূল কর্মসূচিতে বক্তব্য দিচ্ছেন বরগুনা জেলা প্রশাসক ড. মহা. বশিরুল আলম

ঢাকা: বিগত দু’বছরে সফলভাবে বাস্তবায়িত সবুজ উপকূল কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত হয়েছেন স্থানীয় পর্যায়ের বিশিষ্টজনেরা। পূর্বে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার নাফতীরের শাহপরীর দ্বীপ আর পশ্চিমে সাতক্ষীরার সুন্দরবন ঘেঁষা শ্যামনগর পর্যন্ত বিস্তৃত উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার তটরেখা জুড়ে অনুষ্ঠিত হয় এ কর্মসূচি। সূধীজনেরা বলেন, এ এক ভিন্নধরণের কর্মসূচি। এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা একদিকে পরিবেশ সচেতন হচ্ছে, অন্যদিকে তাদের সৃজনশীল মেধার বিকাশ ঘটছে। সবুজউপকূল কর্মসূচিতে সূধীজনদের কিছু উক্তি তুলে ধরা হলো:

বরগুনা জেলা প্রশাসক ড. মহা. বশিরুল আলম বলেন, ‘সবুজ সুরক্ষা করতে হলে স্কুল-কলেজ পড়-য়াদের সচেতনতা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। এই কর্মসূচির মাধ্যমে সেই কাজটিই করা হচ্ছে।’

বরগুনা পুলিশ সুপার বিজয় বসাক (পিপিএম) বলেন, ‘আজকের শিক্ষার্থীরাই আগামীতে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করবে। সবুজ সুরক্ষার বিষয়ে সবার আগে ওদের সচেতন হওয়াটাই জরুরি।’

তজুমদ্দিন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব অহিদ উল্যাহ জসিম বলেন, ‘শুধু পরিবেশ সচেতনতা নয়, এই কর্মসূচি পড়-য়াদের বড় হওয়ার পথে স্বপ্নের জানালা খুলে দেবে। সচেতন হয়ে ওরা বেড়ে উঠবে।’

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রওমান বিনতে শফিকুল ইসলাম (রুমানা) বলেন, ‘এই কর্মসূচির প্রধান কেন্দ্রে পরিবেশ সচেতনতা। শিক্ষার্থীরা লিখছে-আঁকছে, আর পরিবেশ বিষয়ে সচেতন হয়ে উঠছে।’

পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মু: সামসুজ্জামান লিকন বলেন, ‘স্কুলের ছেলেমেয়েদের পাঠ্য বইয়ের সঙ্গে বাস্তবের মিল ঘটাচ্ছে এই কর্মসূচি। প্রতিযোগিতার ভেতর দিয়ে ওরা জানছে চারপাশের জগত সম্পর্কে।’

পটুয়াখালীর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ বি এম সাদিকুর রহমান বলেন, ‘উপকূলের প্রান্তিকে এই কর্মসূচি পরিবেশ তথ্য সবুজ সুরক্ষার বিষয়ে শিক্ষার্থীদের সচেতন করতে বিশেষভাবে সহায়তা করবে।’

বরগুনা-পটুয়াখালী বিভাগীয় বন কর্মকর্তা অজিত কুমার রুদ্র বলেন, ‘বাঁচতে হলে আমাদের ফিরতে হয় গাছপালার কাছে। গাছপালা রক্ষায় আগামী প্রজন্মকে সচেতন করার মাধ্যমে এই কর্মসূচি উপকূলকেই সবুজ রাখছে।’ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ডা. শরীফ মুহম্মদ ফয়েজুল আলম বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশ আর সচেতনতা বৃদ্ধিতে এই ভিন্নধারার কর্মসূচি উপকূলের পরিবেশ সুরক্ষায় বিশেষ অবদান রাখবে।’

কাঁঠালিয়া উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাতেমা খানম বলেন, ‘পরিবেশ সংরক্ষণ করতে আমাদের শেকড়ে আলো ফেলতে হবে। এই কর্মসূচি বিভিন্ন প্রতিযোগিতার মধ্যদিয়ে সেই কাজটিই করছে।’

ভোলার মনপুরা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একেএম শাহজাহান মিয়া বলেন, ‘উপকূলের প্রান্তিক জনপদের স্কুল পড়-য়াদের জন্য মেধা বিকাশে এ কর্মসূচি ভিন্নমাত্রা যোগ করছে। তাদের চোখ পড়বে বাইরের জগতে।’

//প্রতিবেদন/উপকূল বাংলাদেশ/১৭০৭২০১৭//

রফিকুল ইসলাম মন্টু

রফিকুল ইসলাম মন্টু

উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক। বাংলাদেশের সমগ্র উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার জুড়ে তার পদচারণা। উপকূলীয় ১৬ জেলার প্রান্তিক জনপদ ঘুরে প্রতিবেদন লিখেন। পেশাগত কাজে স্বীকৃতি হিসাবে পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেকগুলো পুরস্কার।
পাঠকের মন্তব্য