সবুজ উপকূল ২০১৬, শ্যামনগরের মুন্সীগঞ্জে পড়ুয়াদের জন্য তথ্যভিত্তিক স্টল

সাতক্ষীরার শ্যামনগরে সবুজ উপকূল ২০১৬-এর অনুষ্ঠানে লিডার্স-এর স্টল

মুন্সীগঞ্জ, শ্যামনগর, সাতক্ষীরা, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬ : পশ্চিম উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরার সুন্দরবন লাগোয়া উপজেলা শ্যামনগরের মুন্সীগঞ্জে সবুজ উপকূল ২০১৬ কর্মসূচিতে পড়ুয়াদের জন্য উপস্থাপন করা হয়েছিল দু’টো তথ্যভিত্তিক স্টল। এ দু’টো উপস্থাপন করে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা বারসিক ও লিডার্স।

মঙ্গলবার (৬ সেপ্টেম্বর) শ্যামনগর উপজেলা সদর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে মুন্সীগঞ্জের ধানখালীতে সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় ‘ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক সবুজ উপকূল ২০১৬’ কর্মসূচি। ‘ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ‘উপকূল বাংলাদেশ’ এ কর্মসূচির আয়োজন করে।

এবছর গোটা উপকূল এলাকায় অনুষ্ঠিতব্য ২৬টি কর্মসূচির মধ্যে শ্যামনগরের এই কর্মসূচিতে প্রথমবারের মত তথ্যভিত্তিক স্টল উপস্থাপনের ধারণা সংযুক্ত করা হয়। স্থানীয় আয়োজনকারীদের আমন্ত্রণে সাড়া দেয় শ্যামনগরে কর্মরত দু’টো বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। অনুষ্ঠানের এক কোনে স্টল দু’টো সাজানো হয়।

বেসরকারি সংস্থা লিডার্স বেশকিছু বিষয় উপস্থাপন করে তাদের স্টলে। এখানে তিনটিেইনোভেটিভ প্রজেক্ট তুলে ধরা হয়। এগুলো হচ্ছে চাকার যান্ত্রিক সুবিধা, অক্ষদন্ড ও ভর বাহুর পরিক্ষা। এই স্টলে বেশকিছু পোস্টার উপস্থাপন করা হয়। এরমধ্যে রয়েছে: ১) ‘লোনা পানি রাক্ষস হইয়া, আইলো আমার ভবিষ্যত’; ২) ‘বাঁচার জন্য প্রয়োজন, কৃষিতে অভিযোজন’; ৩) ‘বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় পানি ব্যবস্থাপনা’।

সাতক্ষীরার শ্যামনগরে সবুজ উপকূল ২০১৬-এর অনুষ্ঠানে বারসিক-এর স্টল

এই স্টলে বেশকিছু তথ্যভিত্তিক লিফলেট তুলে ধরা হয়। এগুলোর মধ্যে রয়েছে : ১) ‘জৈব কৃষি’; ২) ‘ভেজাল সার চেনার পদ্ধতি’; ৩) ‘উপকূলীয় এলাকার এক ফসলী জমিতে ভরে দিন দ্বিতীয় ফসল সবজিতে’; ৪) ‘বাংলাদেশের জলবায়ু পরিবর্তন’। এছাড়া এই স্টলে কিছু বই উপস্থাপন করা হয়। এগুলো হলো : ১) ‘স্থানীয় অভিযোজনের কৌশল’; ২) ‘আমাদের স্কুল ও স্বাস্থ্য’; ৩) ‘বিজ্ঞান চিন্তা’।

দেশি জাতের ধান ও অচাষকৃত উদ্ভিদের তথ্য উপস্থাপন করে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা বারসিক। দেশি জাতের ৮৪টি প্রজাতির ধানের নমুনা তুলে ধরা হয়। এগুলোর মধ্যে রয়েছে, পাটনাই, তালমুগুর, ঝিঙেশাইল, নোনাকচি, পানবোড, বালাম, তিলেককুচি, রুপেশ্বর, বডান, হোগলা ইত্যাদি। অচাষকৃত উদ্ভিদের মধ্যে রয়েছে, তেলকুচা, তিত বেগুন, মুক্তিঝুরি, কাঁথা শাক, কানালী গাছ, থানকুনি, তুলসী গাছ, দূর্বা, নয়নতারা, ধূতরা, কাটানুটে, ক্ষুদকুড়ি, হাতিশুড়, মুক্তাঝুরি, আগাছা, আদাবরন।

//প্রতিবেদন/উপকূল বাংলাদেশ/০৬০৯২০১৬//

রফিকুল ইসলাম মন্টু

রফিকুল ইসলাম মন্টু

উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক। বাংলাদেশের সমগ্র উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার জুড়ে তার পদচারণা। উপকূলীয় ১৬ জেলার প্রান্তিক জনপদ ঘুরে প্রতিবেদন লিখেন। পেশাগত কাজে স্বীকৃতি হিসাবে পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেকগুলো পুরস্কার।
পাঠকের মন্তব্য