সবুজ উপকূল ২০১৬, মোড়েলগঞ্জের পল্লীমঙ্গলে বেলাভূমি’র ৩য় সংখ্যা প্রকাশিত

বেলাভূমি পড়ছে এক পড়ুয়া

মোড়েলগঞ্জ, বাগেরহাট, ৩০ আগষ্ট ২০১৬ : উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটের সিডর বিধ্বস্ত জনপদ মোড়েলগঞ্জের প্রত্যন্ত গ্রামে ধানসাগর পল্লীমঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা বের করলো দেয়াল পত্রিকা বেলাভূমি’র ৩য় সংখ্যা। পত্রিকাটিতে পড়ুয়াদের লেখা প্রতিবেদন, রচনা ও হাতে অাঁকা ছবি স্থান পায়। পড়ুয়াদের পরিবেশ সচেতনতা বৃদ্ধি আর সৃজনশীল মেধা বিকাশের লক্ষ্যে বেলাভূমি’র প্রকাশনা অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার করেছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আর পড়ুয়ারা।

মঙ্গলবার (৩০ আগষ্ট) মোড়েলগঞ্জের ধানসাগর পল্লীমঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ‘ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক সবুজ উপকূল ২০১৬’ কর্মসূচি উপলক্ষে বেলাভূমি’র এ সংখ্যাটি প্রকাশিত হয়।

বেলাভূমি’র এই সংখ্যাটির সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়েছে ধানসাগর পল্লীমঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র আঁখি আক্তারকে। তার সঙ্গে সম্পাদনা পরিষদের সদস্য ছিল একই শ্রেণীর আফরোজা আক্তার, তাইয়্যেবা আক্তার, মো. আকাশ মিয়া, শতরূপা মিত্র, ও সায়লা শারমিন মিম।

বেলাভূমি’র এই সংখ্যাটিতে স্থান পেয়েছে বেশকিছু লেখা। এরমধ্যে অধিকাংশই চারপাশের নানান বিষয়ে লেখা সংবাদ। সবুজ উপকূল ২০১৬ নিয়ে লিখেছে দশম শ্রেণীর অাঁখি আক্তার। একই বিষয়ে লেখা তৈরি করেছে অষ্টম শ্রেণীর আফরিন আক্তার। একই শ্রেণীর শিল্পী আক্তারের লেখার বিষয় সতর্কতাই পারে অনেক মানুষের জীবন বাঁচাতে। দশম শ্রেণীর আকাশ মিয়া লিখেছে উপকূলীয় অঞ্চলের চিংড়ির ঘেরগুলো আজ হুমকির সম্মুখীন। একই শ্রেণীর ইমা আক্তারের লেখার বিষয় বন্যা ও ভূমিকম্প কেড়ে নিল শাহিনার জীবন। অষ্টম শ্রেণীর শাম্মী আক্তার লিখেছে যৌতুক ও নারী নির্যাতন বিষয়ে।একই শ্রেণীর মিম লিখেছে অজগর সাপের হানা নিয়ে।

উপকূলীয় অঞ্চলে প্রাকৃতিক বিপর্যয় বিষয়ে লিখেছে সপ্তম শ্রেণীর উম্মে মারিয়া। লোকালয়ে বাঘের আক্রমন নিয়ে লিখেছে সপ্তম শ্রেণীর রহিমা আক্তার। বন্যার ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে লিখেছে অষ্টম শ্রেণীর আসাদ মিয়া। ইভটিজিং নিয়ে লিখেছে সপ্তম শ্রেণীর মোরিয়ম আক্তার। একটি দুর্ঘটনার গল্প তুলে ধরেছে নবম শ্রেণীর মারজান। জামাইয়ের হাতে শ্বশুর খুন বিষয়ে লিখেছে অষ্টম শ্রেণীর তানজিলা আক্তার। সচেতনতা বিষয়ে কবিতা লিখেছে দশম শ্রেণীর আফরোজা আক্তার। বাল্য বিবাহ নিয়ে লিখেছে নবম শ্রেণীর তাইয়্যেবা আক্তার। অতিরিক্ত কাদায় গ্রামের রাস্তায় চলাচল কষ্টদায়ক বিষয়ে লিখেছে সপ্তম শ্রেণীর হৃদি হালদার। দুর্দশা ও দারিদ্যের কারণে ভিক্ষার পথ বেছে নিল খালিকের বউ বিষয়ে লিখেছে অষ্টম শ্রেণীর চাঁদনি আক্তার।

ঘূর্ণিঝড়ের কালো ছায়ায় ঢেকে গেল হাজেরার স্বপ্ন বিষয়ে লিখেছে অাঁখি আক্তার। কিশোরীর আত্মহত্যা নিয়ে লিখেছে অষ্টম শ্রেণীর মোস্তাফিজুর রহমান। বোনের হাতে ভাইয়ের অনাকাংখিত মৃত্যু বিষয়ে লিখেছে নবম শ্রেণীর মিম। উপকূলীয় অঞ্চলে বন্যায় ক্ষয়ক্ষতি বিষয়ে লিখেছে দশম শ্রেণীর আফরোজা আক্তার। যৌতুকের শিকার বিষয়ে লিখেছে অষ্টম শ্রেণীর মুক্তিরাণী। কুমিরের থাবা বিষয়ে লিখেছে অষ্টম শ্রেণীর নদী। নিষ্ঠুর ঝড়ে কেড়ে নিল হালিমার সন্তানকে বিষয়ে লিখেছে দশম শ্রেণীর মিঠু।

উপকূলীয় মানুষের অভিশাপ স্বরূপ প্রাকৃতিক বিপদ বিষয়ে লিখেছে দশম শ্রেণীর মারজান। অগ্নিকান্ডে দুই কোটি টাকা লোকসান নিয়ে লিখেছে নবম শ্রেণীর জসিম উদ্দিন। সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে লিখেছে অষ্টম শ্রেণীর অর্ণা। ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে আজ সর্বশান্ত রহিমার পরিবার বিষয়ে লিখেছে নবম শ্রেণীর সুস্মিতা দে। সচেতনতাই জীবন বাঁচায় বিষয়ে কবিতা লিখেছে দশম শ্রেণীর অাঁখি আক্তার। সবুজ উপকূলে নদীভাঙণের সমস্যা নিয়ে লিখেছে অষ্টম শ্রেণীর রাকিব। মাছ চাষীর আর্তনাদ নিয়ে লিখেছে পূর্ণীমা রাণী। সবুজ উপকূলীয় অঞ্চলে নদীভাঙণ নিয়ে লিখেছে সপ্তম শ্রেণীর নূসরাত জাহার। বনভূমি উজাড় বিষয়ে লিখেছে অষ্টম শ্রেণীর শতরূপা মিত্র।

দশম শ্রেণীর শিফা লিখেছে সুন্দরবন থেকে মধু বিলুপ্তি বিষয়ে। অষ্টম শ্রেণীর ফারজানা মিম লিখেছে শিশুরা শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত বিষয়ে। নবম শ্রেণীর তাইয়্যেবা ইসলাম লিখেছে ক্রীড়া সংবাদ। অনুষ্ঠানের সংবাদ লিখেছে নবম শ্রেণীর শায়লা শারমিন মিম। নদীভাঙণের ফলে সৃষ্ট সমস্যা নিয়ে লিখেছে সপ্তম শ্রেণীর তামান্না আক্তার। এছাড়াও বেলাভূমি’র এই সংখ্যাটিতে সবুজ উপকূল বিষয়ে ছবি এঁকেছে অষ্টম শ্রেণীর চাঁদনী আক্তার ও সপ্তম শ্রেণীর মারিয়া আক্তার।

//প্রতিবেদন/উপকূল বাংলাদেশ/৩০০৮২০১৬//

রফিকুল ইসলাম মন্টু

রফিকুল ইসলাম মন্টু

উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক। বাংলাদেশের সমগ্র উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার জুড়ে তার পদচারণা। উপকূলীয় ১৬ জেলার প্রান্তিক জনপদ ঘুরে প্রতিবেদন লিখেন। পেশাগত কাজে স্বীকৃতি হিসাবে পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেকগুলো পুরস্কার।
পাঠকের মন্তব্য