ঝুঁকি নিয়েই খালাস ও বোঝাই হচ্ছে কাউখালী খাদ্য গুদামের মালামাল

kawkhali-01.JPGপ্রতিবেদন উপকূল বাংলাদেশ, কাউখালী Θ পিরোজপুরের কাউখালী সরকারি খাদ্য গুদামের মালামাল ঝুঁকি  নিয়েই খালাস ও বোঝাই করা হচ্ছে প্রতিনিয়ত। পল্টন ও জেটি না থাকায় কোন মতে কাঠ বাঁশ দিয়ে মাচার মতো তৈরি করে মালামাল খালাসের কাজ চলে। ঝুঁকিপূর্ণ এই মাচা দিয়ে প্রতিনিয়ত মাল খালাস করতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে সাধারণ শ্রমিককরা।

সূত্র বলছে, কাউখালীতে ৫টি খাদ্য গুদামের ধারণ ক্ষমতা ২হাজার মেট্রিক টন । কাউখালী সদর সহ ০৫ টি ইউনিয়নে আপদকালীন খাদ্য সহ বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের খাদ্য মজুদ থাকে এই গুদামগুলোতে। এখান থেকে প্রতিদিন বিভিন্ন ইউনিয়নে মালামাল সরবারাহ করা হয়। কিন্তু উপজেলা সদরের খাদ্য গুদামের পল্টুন ও জেটি না থাকায় একদিকে বিড়ম্বনায় পড়তে হয় শ্রমিকদের, আপরদিকে ঝুঁকি পূর্ন মাচার উপর দিয়ে হাজার হাজার টন খাদ্য শস্য আনা নেয়ার কাজ করতে গিয়ে পড়তে হয় দুর্ঘটনায় ইতিমধ্যে শ্রমিক মো ছোবাহান মোড়ল (৬০) ইয়াকুব আলী (৪৫) ছিদ্দিক (৩৮)  এ মাচা ভেঙ্গে পড়ে গিয়ে গুরতর আহত হয়েছেন শ্রমিকরা একাধিবার ।

উপজেলা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এখানে একটি পল্টুন ও জেটির জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষেও কাছে লিখিত ভাবে আক্ষেদন করা হয়েছে  তিনি আরো বলেন, ঝুঁকিপূর্ন অবস্থায় সরকারের খাদ্যশস্য খালাস করতে গিয়ে একদিকে যেমন সময়ের অপচয় হচ্ছে, অপরদিকে শ্রমিকরা যে কোন সময় মাচা ভেঙ্গে সরকারি খাদ্য শস্য নিয়ে নদীতে পড়ে গিয়ে দুর্ঘটনার আশংকা রয়েছে।

/রবিউল হাসান রবিন/উপকূল বাংলাদেশ/কাউখালী-পিরোজপুর/২৬০৫২০১৪/

রফিকুল ইসলাম মন্টু

রফিকুল ইসলাম মন্টু

উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক। বাংলাদেশের সমগ্র উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার জুড়ে তার পদচারণা। উপকূলীয় ১৬ জেলার প্রান্তিক জনপদ ঘুরে প্রতিবেদন লিখেন। পেশাগত কাজে স্বীকৃতি হিসাবে পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেকগুলো পুরস্কার।
পাঠকের মন্তব্য