মনপুরার সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মুখে হাসি ফুটালো আলোকযাত্রা দল

নতুন পোষাক পেলো চরজ্ঞানের সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা

মনপুরা, ভোলা: দ্বীপ জেলা ভোলার দ্বীপ উপজেলা মনপুরার চরজ্ঞানের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মুখে হাসি ফুটালো আলোকযাত্রা দল। ঈদের আগের গ্রামের ৬৫জন শিশু ৫জন বয়ো:বৃদ্ধ ঈদের নতুন পোষাক পেয়েছে। গ্রামের ১০০ পরিবার পেয়েছে ঈদের দিন সকালে নাস্তা তৈরির সামগ্রী।

আলোকযাত্রা দলের সদস্য কলেজ পড়ুয়া তরুণ বিন ইয়ামিন সিফাত ও দিদার আহমেদ সুবিধাবঞ্চিতদের মাঝে ঈদের নতুন পোষাক বিতরণের উদ্যোগ গ্রহন করলে ব্যাপক সাড়া মেলে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী, বিভিন্ন পেশাজীবীদের অর্থ সহায়তা একত্রিত করে একটি সহায়তা তহবিল গঠন করা হয়। এ দিয়ে স্থানীয় বাজার থেকেই ঈদ-পোষাক ও অন্যান্য সামগ্রী ক্রয় করা হয়। এর আগে আলোকযাত্রা দলের সদস্যরা চরজ্ঞানের শিশুদের বয়সসহ নামের তালিকা তৈরি করে।

ঈদের আগেরদিন চরজ্ঞানে ঈদ সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মনপুরা প্রেসক্লাব সভাপতি মোঃ আলমগীর হোসেন, মনপুরা শিক্ষক কল্যাণ সমিতির সভাপতি সহকারী অধ্যাপক মোঃ মাহবুবুল আলম শাহীন, প্রেসক্লাব সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ ছালাহউদ্দিন, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের ছাত্র মোঃ আব্দুস সামাদ, মোঃ ইব্রাহীম কিরন, মোঃ রবিন, মোঃ আকাশ, মোঃ জোবায়ের, মোঃ রাকিব, মোঃ কাশেম এবং স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা মোঃ রুবেল সিকদারসহ প্রমুখ।

উপহার সামগ্রী পেয়ে ছিন্নমূলের এসব শিশুদের মাঝে হাঁসি ফুটে উঠেছে। এমন অনেকেই ঈদ পোষাক পেয়েছে, যারা এর আগে কখনোই ঈদে নতুন পেষাক পায়নি। বাবা-মায়ের কাছে বায়না ধরেও তারা কোন পোষাক পায়নি। শিশুদের ঈদ-বস্ত্র বিতরণ ছাড়াও চরজ্ঞানের প্রতিটি ঘরে ঈদের দিনের নাস্তার সামগ্রী চিনি, সেমাই ও প্যাকেট দুধ পেয়েছে। এই উদ্যোগ গোটা গ্রামে এবার অন্যরকম ঈদ নিয়ে এসেছে।

গ্রামের একজন বললেন, ঈদ সামনে রেখে আমাদের জন্য এমন উদ্যোগ এরআগে কখনো কেউ নেয়নি। আমরা খুবই আনন্দিত। উপহার সামগ্রী পাওয়ায় অন্যান্যবারের থেকে এবারের ঈদ হবে আলাদা। সবার ঘরে ফুটবে আনন্দের হাসি।

এই ব্যতিক্রমী আয়োজনের অন্যতম উদ্যোক্তা আলোকযাত্রা দলের সদস্য বিন ইয়ামিন সিফাত অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে জানায়, এটা আমার জীবনে একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা। প্রথমে বুঝতে পারিনি এতটা সাড়া মিলবে। শেষ পর্যন্ত গ্রামের সবার মুখেই হাসি ফোটাতে পেরেছি। এবার আমার ঈদটাই যেন অন্যরকম আনন্দে ভরে গেছে।

আরেকজন উদ্যোক্তা আলোকযাত্রা দলের সদস্য দিদার আহমেদ বলে, শিশুদের ঈদ পোষাক দিয়ে ওদের সাথে যে ছুবি তুললাম সেটা জীবনের সেরা ছবি। মানুষের জন্য করাতে পারার আনন্দটাই যেন অনুভব করছি এই কাজের মধ্যদিয়ে। সারাজীবন এভাবে মানুষের পাশে থাকতে চাই।

মনপুরা প্রেসক্লাবের সভাপতি আলমগীর হোসেন বলেন, ছাত্রদেরও সামাজিক দায়িত্ব আছে। ভালো লেখাপড়া করলেই ভালো ছাত্র হয় না। তাকে সমাজের বিভিন্ন কাজেরও অংশ নিতে হয়। ওরা কাজটি করে নিজেরা যেমন অনেক বিষয় জানতে পারলো, পাশাপাশি বড়দেরও দেখিয়ে দিলো সমাজে অনেক কিছু করার আছে। যা সামান্য উদ্যোগ নিয়েই করা সম্ভব। সবার ছোট ছোট অংশগ্রহনে অনেক বড় কাজও সহজ হয়ে যায়।

//প্রতিবেদন/২৬০৬২০১৭//

montu

লেখক: montu

পাঠকের মন্তব্য