লক্ষ্মীপুরে দেড় মাসে হাজার শিশু হাসপাতালে ভর্তি, বেকায়দায় চিকিৎসকরা

লক্ষ্মীপুর হাসপাতালে ঠাঁই নেই

লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুরে শীতজনিত রোগে ব্যাপকহারে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা। রোটা ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া, সর্দি, জ্বরসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্তদের নিয়ে হাসপাতালে ভিড় করছেন স্বজনরা। শুধু ১০০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালেই গত দেড় মাসে ঠান্ডাজনিত সহস্রাধিক শিশুকে ভর্তি করা হয়েছে। এ অবস্থায় চিকিৎসা কার্যক্রম পরিচালনা করতে গিয়ে চিকিৎসকদের হিমশিম খেতে হচ্ছে।

সদর হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত দেড় মাসে সহস্রাধিক শিশুকে ভর্তি করা হয়েছে। তারা রোটা ডায়রিয়া, নিমোউনিয়া, সর্দি ও জ্বরসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে এসেছেন। এদের মধ্যে নবজাতক থেকে শুরু করে ২ বছরের শিশুর সংখ্যাই বেশী। পাশাপাশি বৃদ্ধরাও আক্রান্ত হচ্ছে। রোগীদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা করতে গিয়ে হাসপাতালের সেবিকা ও চিকিৎসকদের হিমশিম খেতে হচ্ছে।

ওই হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, বেড সংকটের কারনে গাদাগাদি করে শিশুদের রাখা হয়েছে। একই বেডে একাধিক শিশু চিকিৎসা নিচ্ছে। অনেকেই বাধ্য হয়ে ফ্লোরের মধ্যে বিছানায় করে রোগীর চিকিৎসা করাচ্ছেন। একই অবস্থা রামগঞ্জ, রায়পুর, রামগতি ও কমলনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের। বেসরকারি ক্লিনিকগুলোতে শিশুদের নিয়ে অভিভাবকদের ভিড় করতে দেখা গেছে।

জানতে চাইলে সদর হাসপাতালের শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার ইসমাইল হাছান বলেন, আবহাওয়া  বদল জনিত কারনে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। ডায়রিয়ার সংকট লাঘবে শিশুদের মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানো, বিশুদ্ধ পানি পান ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন থাকবে হবে। হাসপাতালে ভর্তির ২-১ দিন পর সুস্থ হলে শিশুদেও নিয়ে অভিভাবকরা বাড়ি ফিরে যাচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডাক্তার আনোয়ার হোসেন বলেন, গত দেড় মাসে শীতজনিত রোগী একহাজারেরও বেশি শিশু হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। হাসপাতালে আসা রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে চিকিৎসকরা আন্তরিকভাবে কাজ করছেন। হাসপাতালে পর্যাপ্ত সংখ্যক খাবার স্যালাইন ও প্রয়োজনীয় ওষধ মজুদ রয়েছে।

// প্রতিবেদন/উপকূল বাংলাদেশ/১০১১২০১৬//

রফিকুল ইসলাম মন্টু

রফিকুল ইসলাম মন্টু

উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক। বাংলাদেশের সমগ্র উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার জুড়ে তার পদচারণা। উপকূলীয় ১৬ জেলার প্রান্তিক জনপদ ঘুরে প্রতিবেদন লিখেন। পেশাগত কাজে স্বীকৃতি হিসাবে পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেকগুলো পুরস্কার।
পাঠকের মন্তব্য