সবুজ উপকূল ২০১৬, বেলাভূমি’র ৪র্থ সংখ্যা বের হল শ্যামনগরের সুন্দরবন বালিকা বিদ্যালয়ে

সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে প্রকাশিত বেলাভূমি’র ৪র্থ সংখ্যা

মুন্সীগঞ্জ, শ্যামনগর, সাতক্ষীরা, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬ : পশ্চিম উপকূলের জেলা সাতক্ষীরার সুন্দরবন লাগোয়া উপজেলা শ্যামনগরের মুন্সীগঞ্জে সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা বের করলো দেয়াল পত্রিকা বেলাভূমি’র ৪র্থ সংখ্যা। পত্রিকাটিতে পড়ুয়াদের লেখা প্রতিবেদন, রচনা ও হাতে অাঁকা ছবি স্থান পেয়েছে। কেউ লিখেছে সুন্দরবনের গাছপালা নিয়ে, কেউবা বনের প্রাণী নিয়ে। আবার কারও লেখায় উঠে এসে সমুদ্র তীরবর্তীএলাকার মানুষের দু:খ-কষ্টের কথা।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরিবেশ সচেতনতা বাড়ানো আর সৃজনশীল মেধা বিকাশের লক্ষ্যে বেলাভূমি’র প্রকাশনা অব্যাহত রাখার দাবি পড়ুয়াদের। আর তাদের এ দাবি পূরণে সর্বাত্মক সহায়তা দেয়ার অঙ্গীকার করেছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (৬ সেপ্টেম্বর) সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ‘ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক সবুজ উপকূল ২০১৬’ কর্মসূচি উপলক্ষে বেলাভূমি’র এ সংখ্যাটি প্রকাশিত হয়। ২০১৫ সালে সবুজ উপকূল কর্মসূচিতে এই বিদ্যালয়ে বেলাভূমি’র প্রকাশ শুরু হয়। কর্মসূচির বাইরেও বেলাভূমি’র প্রকাশনা অব্যাহত রয়েছে।

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় উপকূল জুড়ে স্কুল পড়ুয়াদের নিয়ে এ ব্যতিক্রমী কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে উপকূল বিষয়ক ওয়েব জার্নাল ‘উপকূল বাংলাদেশ’।

উপকূলের পড়ুয়াদের পরিবেশ সচেতনতা বাড়ানো, সৃজনশীল মেধার বিকাশ, লেখালেখি চর্চার মাধ্যমে তথ্যে প্রবেশাধিকারসহ জীবন দক্ষতা বাড়ানো এই কর্মসূচির অন্যতম লক্ষ্য।

সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় থেকে প্রকাশিত বেলাভূমি’র এই সংখ্যাটির সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে দশম শ্রেণীর শিল্পী মৃধা। তার সহযোগী হিসাবে সম্পাদনা পরিষদের সদস্য ছিল দশম শ্রেণীর প্রিয়া মন্ডল, নবম শ্রেণীর পার্বতী মন্ডল, নবম শ্রেণীর সম্পা গায়েন, নবম শ্রেণীর আমিনা খাতুন, নবম শ্রেণীর শামিমা আক্তার ও অষ্টম শ্রেণীর কৃতিদিপা মন্ডল।

সম্পাদক হিসাবে এই সংখ্যাটিতে সম্পাদকীয় লিখেছে শিল্পী মৃধা। এতে লেখা হয়, ‘‘আজ বেলাভূমি’র চতুর্থ সংখ্যা প্রকাশিত হল। আজ আমাদের সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের একটি বিশেষ দিন। সবুজ উপকূল ২০১৬ উপলক্ষে বেলাভূমি’র চতুর্থ সংখ্যাটি প্রকাশ করলাম আমার ছোট-বড় বোনদের সহায়তায়। সকলের চিন্তা ও মেধার বলে এ সংখ্যাটি অন্যসব সংখ্যার তূলনায় একটু আলাদা হয়েছে বলে আমাদের সহপাঠীদের অভিমত। উপকূল নিয়ে সকলের ভাবনা সৃষ্টিতে আমাদের এ দেয়াল পত্রিকাটি প্রকাশ করা হয়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকবৃন্দের সহযোগিতায় পত্রিকাটি আমরা প্রকাশ করে যাবো আশা করছি। এক্ষেত্রে শিক্ষক রনজিৎ কুমার বর্মন-এর সর্বাত্মক সহযোগিতা পেয়ে কাজটি করা সহজ হয়েছে। আগামীতে পত্রিকাটি আরও সুন্দর হবে, এ প্রার্থনা করি।’’

বেলাভূমি ৪র্থ সংখ্যার সম্পাদকীয়

সংখ্যাটিতে সম্পাদকীয় ছাড়াও বেশকিছু লেখা ও হাতে অাঁকা ছবি স্থান পেয়েছে। সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর গায়ত্রী মন্ডল ‘‘বাল্য বিবাহ’’ নিয়ে একটি প্রতিবেদন লিখেছে। ‘‘আইলা’’ শিরোনামে একটি কবিতা লিখেছে ত্রিপানি বিদ্যাপীঠের নবম শ্রেণীর ডালিম মন্ডল। একই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর কনিকা গায়েন ‘‘পলাশী জীবন’’ শিরোনামে কতিা লিখেছে। সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর আমিনা খাতুন ‘‘আমরা বাঁচাবো সুন্দরবন’’ বিষয়ে কবিতা লিখেছে। একই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর সম্পা গায়েন ‘‘আমাদের পরিবেশ’’ নিয়ে আরেকটি কবিতা লিখেছে। একই বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীর ফতেমা খাতুন লিখেছে ‘‘আমাদের গ্রাম’’ শিরোনামের ফিচার।

এই সংখ্যাটিতে ‘‘উপকূল’’ শিরোনামে কবিতা লিখেছে তপোবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর মনিষা মিস্ত্রী। বনশ্রী শিক্ষানিকেতনের অষ্টম শ্রেণীর রাখি কর্মকার ‘‘উপকুল’’ বিষয়ে বন্ধুর কাছে চিঠি লিখেছে। ‘‘গাছ লাগান’’ শিরোনামে প্রবন্ধ লিখেছে সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর শিল্পী মৃধা। আর একই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ভূমিকা বৈদ্য ‘‘আমার স্বপ্নের সবুজ উপকূল’’ শিরোনামে ছবি এঁকেছে।

‘বেলাভূমি’ প্রকাশে সহায়তাকারী বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রনজিৎ বর্মন বলেন, বেশ কয়েকটি সংখ্যা প্রকাশ করে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা লেখালেখিতে বেশ দক্ষ হয়ে উঠছে। এখন ওরা নিজেরা চমৎকার পত্রিকা তৈরি করতে পারে। প্রথম সংখ্যা থেকে বর্তমান সংখ্যাটির তূলনা করলে লেখা ও অঙ্গসজ্জার মান অনেক ভালো। আগামীতে আরও ভালো করবে আশাকরি।

//প্রতিবেদন/উপকূল বাংলাদেশ/০৬০৯২০১৬//

রফিকুল ইসলাম মন্টু

রফিকুল ইসলাম মন্টু

উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক। বাংলাদেশের সমগ্র উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার জুড়ে তার পদচারণা। উপকূলীয় ১৬ জেলার প্রান্তিক জনপদ ঘুরে প্রতিবেদন লিখেন। পেশাগত কাজে স্বীকৃতি হিসাবে পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেকগুলো পুরস্কার।
পাঠকের মন্তব্য