সবুজ উপকূল ২০১৬, খুলনার পাইকগাছায় পড়ুয়াদের প্রতি সবুজ সুরক্ষার আহবান

পাইকগাছার অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিচ্ছেন প্রধান অতিথি

পাইকগাছা, খুলনা, ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬ : উপকূলের পড়ুয়াদের সবুজ সুরক্ষার আহবানের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠিত হল ‘ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক সবুজ উপকূল ২০১৬’ কর্মসূচি। শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৫ কিলোমিটার দূরে গদাইপুর ইউনিয়নের ভোলানাথ সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে অত্যন্ত উৎসবমূখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত এ কর্মসূচিতে ছিল রচনা লিখন, কবিতা/ছড়া লিখন, পত্র লিখন, ছবি আঁকা ও সংবাদ লিখন প্রতিযোগিতা। আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এছাড়াও ‘নতুন প্রজন্মের জন্য চাই সবুজ উপকূল’ বিষয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়, মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয় এবং গাছের চারা রোপণ করা হয়। কর্মসূচি উপলক্ষে বিদ্যালয়ে প্রকাশিত হয় দেয়াল পত্রিকা ‘বেলাভূমি’র ৪র্থ সংখ্যা।

পাইকগাছার অনুষ্ঠানে ভলান্টিয়ারগণ

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় এই কর্মসূচির আয়োজন উপকূল বিষয়ক ওয়েব জার্নাল ‘উপকূল বাংলাদেশ’। উপকূলের পড়ুয়াদের মাঝে পরিবেশ সচেতনতা বাড়ানো, সৃজনশীল মেধার বিকাশ, লেখালেখি চর্চার মাধ্যমে তথ্যে প্রবেশাধিকারসহ জীবন দক্ষতা বাড়ানো এই কর্মসূচির অন্যতম লক্ষ্য।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন পাইকগাছা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট স ম বাবর আলী। সভায় সভাপতিত্ব করেন ভোলানাথ সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ডা. শেখ মো. শহীদুল্লাহ।

আলোচনায় অংশ নেন পাইকগাছা আইনজীবী সমিতির সদস্য অ্যাডভোকেট শফিকুল ইসলাম কচি, কপিলমুনি সিটি প্রেসক্লাবের সভাপতি কে এম আজাদ হোসেন, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক কপিলমুনি শাখার ব্যবস্থাপক মো. জাফর ইকবাল, আগড়ঘাটা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মোশাররফ হোসেন, সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হায়দার আলী পাড়।

অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য দেন সবুজ উপকূল ২০১৬ স্থানীয় বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব ও এসডাব্লিউ নিউজের সম্পাদক প্রকাশ ঘোষ বিধান। কর্মসূচির পেক্ষাপট তুলে ধরেন কর্মসূচির কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী ও আয়োজক প্রতিষ্ঠানের প্রধান রফিকুল ইসলাম মন্টু। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক প্রশান্ত কুমার মন্ডল।

পাইকগাছার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির কাছ থেকে পুরস্কার নিচ্ছে এক পড়ুয়া

অনুষ্ঠানের শুরুতে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে উপকূলের সার্বিক অবস্থা তুলে ধরে বক্তব্য দেয় শহীদ জিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী হাসনাহেনা এবং সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী অনন্যা অধিকারী।

আলোচনা সভায় বক্তারা শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, উপকূল সুরক্ষায় আগামী প্রজন্মকে এগিয়ে আসতে হবে। উপকূল অঞ্চল বিভিন্ন ধরণের প্রাকৃতিক দুর্যোগের শিকার। ঝড়-জলোচ্ছ্বাস এ অঞ্চলে প্রতি বছর হানা দেয়। এইসব কারণে আজকের পড়ুয়ারা ঝুঁকির মুখে আছে। শিক্ষা ক্ষেত্রে তাদের রয়েছে নানান সমস্যা। এইসব সমস্যা মোকাবেলায় আগামী প্রজন্মকে এগিয়ে আসতে হবে। শুধু গাছ লাগানো নয়, এর পাশাপাশি চারপাশের পরিবেশ রক্ষায় সজাগ হতে হবে। পরিবেশ ও ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। লেখালেখির মধ্যদিয়ে শিক্ষার্থীরা অনেক তথ্য আহরণের পাশাপাশি সচেতন হয়ে উঠতে পারে।

সবুজ উপকূল ২০১৬ কর্মসূচির আওতায় ৯ম-১০ম শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে অনুষ্ঠিত ‘চারপাশের পরিবেশ সমস্যা ও উত্তরণের উপায়’ বিষয়ে রচনা লিখন প্রতিযোগিতায় ১ম হয়েছে ভোলানাথ সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর আরজু সুলতানা (হ্যাপি), ২য় হয়েছে আগড়ঘাটা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর জান্নাতুল ফেরদৌস (ঐশি), ৩য় হয়েছে ভোলানাথ সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর মো. নাইমুর রহমান (রনি)। একই শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে অনুষ্ঠিত ‘উপকূল’ বিষয়ে কবিতা/ছড়া প্রতিযোগিতায় ১ম হয়েছে ভোলানাথ সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর রিয়া খাতুন, ২য় হয়েছে একই বিদ্যালয়ের ১০ শ্রেণীর আরজু সুলতানা (হ্যাপি), ৩য় হয়েছে একই বিদ্যালয়ের শেখ রকিবুল হাসান।

পাইকগাছার অনুষ্ঠানে গাছের চারা লাগানো হচ্ছে

কর্মসূচির আওতায় ৬ষ্ঠ-৮ম শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে অনুষ্ঠিত ‘সবুজ উপকূল সুরক্ষায় আমিও অংশীদার’ বিষয়ে পত্র লিখন প্রতিযোগিতায় ১ম হয়েছে শহীদ জিয়া বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর হাসনা হেনা, ২য় হয়েছে ভোলানাথ সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ঝর্না খাতুন, ৩য় হয়েছে আগড়ঘাটা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর তাজিয়া ঝর্না। একই শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে অনুষ্ঠিত ‘আমার স্বপ্নের উপকূল’ বিষয়ে ছবি আঁকা প্রতিযোগিতায় ১ম হয়েছে শহীদ জিয়া বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর রাসমনি সাধু, ২য় হয়েছে আগড়ঘাটা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর জয়শ্রী চৌধুরী, ৩য় হয়েছে শহীদ জিয়া বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর শিরিনা বেগম।

৬ষ্ঠ-১০ম শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে অনুষ্ঠিত ‘চারপাশের যেকোন বিষয়’ নিয়ে সংবাদ লিখন প্রতিযোগিতায় ১ম হয়েছে আগড়ঘাটা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীর যোশি চন্দন বিশ্বাস, ২য় হয়েছে শহীদ জিয়া বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর নাজিয়া ফেরদৌসী, ৩য় হয়েছে আগড়ঘাটা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীর রূপা বিশ্বাস।

পাইকগাছার অনুষ্ঠানে এক পড়ুয়ার নৃত্য পরিবেশনা

মেধার ভিত্তিতে পাঁচ শিক্ষার্থীকে স্কুল ড্রেস ও খাতা কলম দেয়া হয়। এরা হচ্ছে : ভোলানাথ সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীর ইমরান হোসেন, সপ্তম শ্রেণীর নারগিস আক্তার, অষ্টম শ্রেণীর লিপি খাতুন, নবম শ্রেণীর কাজী বায়েজিদ, শহীদ জিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর সুরাইয়া ইয়াসমিন পপি।

কর্মসূচিতে ৩টি বিদ্যালয়ের সহস্রাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এগুলো হচ্ছে: ভোলানাথ সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, আগড়ঘাটা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও শহীদ জিয়া বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়।

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় এই কর্মসূচির আয়োজন করেছে উপকূল বাংলাদেশ। এতে মিডিয়া পার্টনার হিসাবে ছিল একুশে টেলিভিশন, দৈনিক ইত্তেফাক, ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস, রেডিও ভূমি ও বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর ডটকম। আইটি পার্টনার ছিল আইটি প্রতিষ্ঠান ডটসিলিকন। আয়োজনে সহযোগিতা করেছে স্কুল পড়ুয়াদের লেখালেখির সংগঠণ আলোকযাত্রা।

কর্মসূচিতে স্কুল-কলেজ পড়ুয়াদের পরিবেশ সচেতনতার পাশাপাশি সৃজনশীল মেধা বিকাশের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। প্রতিযোগিতার বিভিন্ন ইভেন্টে পড়ুয়ারা লেখালেখির মাধ্যমে নিজেদের ভাবনা প্রকাশ করে।

পাইকগাছার অনুষ্ঠানে এক পড়ুয়ার নৃত্য পরিবেশনা

গত বছর সবুজ উপকূল ২০১৫ কর্মসূচির সফল সমাপ্তির ধারাবাহিকতায় এবার সবুজ উপকূল ২০১৬ কর্মসূচির যাত্রা শুরু হয়। এবার কর্মসূচির আওতায় এসেছে উপকূলের ১৪ জেলার ২৫টি উপজেলা। ২৬টি স্থানের ১১৬টি স্কুলের প্রায় ৮০ হাজার শিক্ষার্থী এই কর্মসূচিতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে অংশ নিচ্ছে।

এবার স্কুল-ভিত্তিক কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হচ্ছে ভোলার সদর, তজুমদ্দিন, মনপুরা, বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ, পটুয়াখালীর গলাচিপা ও কলাপাড়া, বরগুনার বেতাগী, ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া, পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া, বাগেরহাটের সদর, শরণখোলা, মোড়েলগঞ্জ, সাতক্ষীরার তালা, শ্যামনগর, খুলনার কয়রা, পাইকগাছা, লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের তোরাবগঞ্জ, হাজীরহাট, নোয়াখালীর হাতিয়া, সুবর্ণচর, ফেনীর সোনাগাজী, চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ, বাঁশখালী, এবং কক্সবাজারের কুতুবদিয়া, মহেশখালী ও টেকনাফ।

//প্রতিবেদন/উপকূল বাংলাদেশ/০৩০৯২০১৬//

রফিকুল ইসলাম মন্টু

রফিকুল ইসলাম মন্টু

উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক। বাংলাদেশের সমগ্র উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার জুড়ে তার পদচারণা। উপকূলীয় ১৬ জেলার প্রান্তিক জনপদ ঘুরে প্রতিবেদন লিখেন। পেশাগত কাজে স্বীকৃতি হিসাবে পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেকগুলো পুরস্কার।
পাঠকের মন্তব্য