সবুজ উপকূল ২০১৬, বেলাভূমি’র ৩য় সংখ্যা বের হল বাগেরহাটের উদ্দীপন বিদ্যানিকেতনে

বাগেরহাটে সবুজ উপকূল ২০১৬ কর্মসূচিতে প্রকাশিত বেলাভূমি’র ৩য় সংখ্যা

বাগেরহাট, ২৮ আগষ্ট ২০১৬ : উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটের বৈটপুরে উদ্দীপন বদর-সামছু বিদ্যানিকেতনের পড়ুয়ারা বের করলো দেয়াল পত্রিকা বেলাভূমি’র তৃতীয় সংখ্যা। পত্রিকাটিতে পড়ুয়াদের লেখা প্রতিবেদন, রচনা ও হাতে অাঁকা ছবি স্থান পায়। পড়ুয়াদের পরিবেশ সচেতনতা বৃদ্ধি আর সৃজনশীল মেধা বিকাশের লক্ষ্যে বেলাভূমি’র প্রকাশনা অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার করেছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আর পড়ুয়ারা।

রবিবার (২৮ আগষ্ট) বাগেরহাট সদরের বৈটপুরে উদ্দীপন বদর-সামছু বিদ্যানিকেতনে ‘ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক সবুজ উপকূল ২০১৬’ কর্মসূচি উপলক্ষেএ সংখ্যাটি প্রকাশিত হয়।

বেলাভূমি’র এই সংখ্যাটির সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়েছে উদ্দীপন বদর-সাামছু বিদ্যানিকেতনের দশম শ্রেণীর ছাত্রী অনন্যা রহমানকে। তার সঙ্গে সম্পাদনা পরিষদের সদস্য ছিল মেঘলা আক্তার, বৃষ্টি আক্তার, বৈশাখী আক্তার, নাইম পাইক, হেলাল মল্লিক, আনিকা খাতুন, মীম আক্তার, আনিচুর রহমান, রাকিবুর রহমান ও সাকিবুর রহমান।

সংখ্যাটিতে বিভিন্ন বিষয়ে লেখা প্রকাশিত হয়। ‘পরিবেশগত ভারসাম্য রক্ষার জন্য চাই বৃক্ষরোপণ’ বিষয়ে লিখেছে মেঘলা আক্তার। ‘আমাদের গ্রাম বৈটপুর’ শিরোনামে লিখেছে আছিয়া আক্তার। মারিয়া জামান মুন লিখেছে ‘উপকূলের সবুজ বেষ্টনির সুন্দর পথ’ শিরোনামে। ‘উপকারী গাছপালা’ বিষয়ে লিখেছে যুথি আক্তার। নাঈমা পাইকের লেখার শিরোনাম ‘হারিয়ে যাচ্ছে শ্যামল প্রকৃতি’। মাহফুজা আক্তার মিম লিখেছে ‘কুলসুম আর স্কুলে আসে না’ শিরোনামে। ‘উপকারী নিম গাছ’ শিরোনামে লিখেছে সুমাইয়া আক্তার নিঝুম। মাহফুজা আক্তার মিমি লিখেছে ‘গাছ’ শিরোনামে। ‘সবুজ শ্যামল গ্রাম’’ শিরোনামের লেখাটি তৈরি করেছে মারিয়া জামান মুন। ‘চিংড়ি ও সবজি চাষে সাফল্য’ বিষয়ে লিখেছে শারমিন আক্তার। সুমাইয়া আক্তার তার লেখার শিরোনাম দিয়েছে ‘রাস্তা সংস্কারের দাবি এলাকাবাসীর’। এবং ‘সবুজ বাংলাদেশ চাই’ শিরোনামে প্রতিবেদন লিখেছে তাইজুল ইসলাম।

দেয়াল পত্রিকা প্রকাশের পর অনুভূতি ব্যস্ত করে পড়ুয়ারা বললো, এ পত্রিকা আমাদের জীবনের সাথেই মিশে আছে। এখানে আমরা আমাদের ভাবনা প্রকাশ করতে পারছি। এতে আমাদের প্রতিভা বিকাশে সহায়ক হচ্ছে। দেয়াল পত্রিকা আমাদের অনেক দূর এগিয়ে নিতে পারে।

//প্রতিবেদন/উপকূল বাংলাদেশ/২৮০৮২০১৬//

রফিকুল ইসলাম মন্টু

রফিকুল ইসলাম মন্টু

উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক। বাংলাদেশের সমগ্র উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার জুড়ে তার পদচারণা। উপকূলীয় ১৬ জেলার প্রান্তিক জনপদ ঘুরে প্রতিবেদন লিখেন। পেশাগত কাজে স্বীকৃতি হিসাবে পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেকগুলো পুরস্কার।
পাঠকের মন্তব্য