খুলনায় স্মরণসভায় বক্তারা : ‘মোনাজাতউদ্দিন গ্রামীণ সাংবাদিকতার অন্যতম পথিকৃত’

খুলনায় চারণ সাংবাদিক মোনাজাতউদ্দিনের স্মরণে সভাখুলনা : ‘চারণ সাংবাদিক মোনাজাতউদ্দিন গ্রামীণ সাংবাদিকতার অন্যতম পথিকৃত। তিনি এ সাংবাদিকতাকে নিয়মিত উৎকর্ষতা জাগিয়ে তুলেছিলেন। সমৃদ্ধ করেছেন মাঠের সাংবাদিকতাকে। তাঁকে অনুসরণ করলে যে কোন সাংবাদিক পেশায় কলুষমুক্ত থাকতে পারবে। তাই মোনাজাতউদ্দিনকে ধারণ ও তাঁর আদর্শে উজ্জীবিত হতে হবে।’

চারণ সাংবাদিক মোনাজাতউদ্দিনের ২০তম মৃত্যুবাষির্কী উপলক্ষে খুলনা প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। উপকূল বাংলাদেশের সহযোগিতায় কোস্টাল জার্নালিস্ট ফোরাম অব বাংলাদেশ-সিজেএফবি’র উদ্যোগে শনিবার (২ জানুয়ারি) দুপুরে খুলনা ওয়ার্কিং জার্নালিস্ট ইউনিটি এ সভার আয়োজন করে।

ইউনিটির আহবায়ক গৌরাঙ্গ নন্দীর সভাপতিত্বে এবং খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলম সোহাগের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায়  আলোচনায় অংশ নেন খুলনা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি শেখ আবু হাসান, খুলনা ওয়ার্কিং জার্নালিস্ট ইউনিটির সদস্য সচিব শাহ আলম, সময়ের খবর পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক খুলনা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোতাহার রহমান বাবু, দক্ষিণাঞ্চল প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক এস এম সাহিদ হোসেন, খুলনা মেট্রোপলিটন সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হাসান আহমেদ মোল্লা, দৈনিক প্রবর্তন পত্রিকার সম্পাদক মোস্তফা সারোয়ার, এনটিভি’র খুলনা প্রতিনিধি আবু তৈয়েব, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি মামুন রেজা।

আরও বক্তব্য দেন বাসস’র খুলনা প্রতিনিধি এস এম জাহিদ হোসেন, বিএফইউজের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক হাওলাদার, মাছরাঙ্গা টিভির খুলনা ব্যুরো প্রধান আবু হেনা মোস্তফা জামাল পপলু, দৈনিক ইত্তেফাকের খুলনা প্রতিনিধি এনামুল হক, খুলনা ওয়ার্কিং জার্নালিস্ট ইউনিটির যুগ্ম সদস্য সচিব হেদায়েত হোসেন ও কৌশিক দে, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের নির্বাহী পরিষদ সদস্য সামছুজ্জামান শাহিন, খুলনা প্রেসক্লাবের কোষাধক্ষ্য কাজী শামীম আহমেদ, সময় টিভির খুলনা ব্যুরো প্রধান তরিকুল ইসলাম, মাছরাঙ্গা টিভির খুলনা প্রতিনিধি প্রবীর কুমার বিশ্বাস প্রমুখ।

এ সময় খুলানায় কর্মরত টেলিভিশন, পত্রিকা ও অনলাইনে কর্মরত সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা সভায় বক্তারা আরও বলেন, পেশার সাথে দায়িত্বশীলতাকে একান্তভাবে জড়িয়ে নিয়েছিলেন মোনাজাতউদ্দিন। এই দায়িত্বশীলতার সঙ্গে কখনো কখনো যুক্ত হয়েছে বড় চ্যালেঞ্জ। তথ্য প্রযুক্তি বিহীন তখনকার সময়ে সংবাদ ও ছবি ঢাকাতে পাঠানো ছিল অনেক কষ্ঠের। কিন্তু সব কিছুই তিনি করেছিলেন আপন মনে। এছাড়া তাঁর তৃতীয় নয়ন ছিল প্রর্খ যা দিয়ে তিনি সংবাদের মধ্যের সংবাদ খুঁজে বের করতেন। তাই বর্তমান সময়ে তাঁর জীবনী থেকে আমাদের শিক্ষা নিয়ে সাংবাদিকতা করা উচিৎ।

আলোচনা সভার শুরুতে সাংবাদিক মোনাজাতউদ্দিনের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। উল্লেখ্য সাংবাদিক মোনাজাতউদ্দিনের ১৯৯৫ সালের ২৯ ডিসেম্বর খবরের ছবি তুলতে গিয়ে ফেরির ছাদ থেকে পড়ে মৃত্যু বরণ করেণ। ১৯৭২ সালে রংপুর থেকে প্রকাশিত দৈনিক রংপুর এর সম্পাদক ও প্রকাশক ছিলেন মোনাজাতউদ্দিন। এরপর সাথে সাথে তিনি কাজ করেছে ঢাকার দৈনিকে।

প্রসঙ্গত, চারণ সাংবাদিক মোনাজাতউদ্দিন ১৯৯৫ সালের ২৯ ডিসেম্বর ফেরির ছাদ থেকে যমুনা নদীতে পড়ে প্রাণ হারান। স্থানীয় সাংবাদিক সংগঠণের সহায়তায় এ বছর থেকে উপকূল জুড়ে এই দিনটি পালনের উদ্যোগ নিয়েছে কোস্টাল জার্নালিস্ট ফোরাম অব বাংলাদেশ-সিজেএফবি। এবার উপকূলের ৩০ স্থানে দিবসটি পালিত হচ্ছে।

//প্রবীর বিশ্বাস/উপকূল বাংলাদেশ/খুলনা/০৩০১২০১৬//

রফিকুল ইসলাম মন্টু

রফিকুল ইসলাম মন্টু

উপকূল অনুসন্ধানী সাংবাদিক। বাংলাদেশের সমগ্র উপকূলের ৭১০ কিলোমিটার জুড়ে তার পদচারণা। উপকূলীয় ১৬ জেলার প্রান্তিক জনপদ ঘুরে প্রতিবেদন লিখেন। পেশাগত কাজে স্বীকৃতি হিসাবে পেয়েছেন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অনেকগুলো পুরস্কার।
পাঠকের মন্তব্য