পাইকগাছার পড়ুয়ারাদের প্রকৃতিপাঠ, সবুজে গড়ছে জীবন

সবুজ উপকূল পরিবর্তনের গল্প: পাইকগাছা-খুলনা

ঢাকা: বিদ্যালয়ে পাঠ্যক্রমের পাশাপাশি প্রকৃতি থেকে শিখছে পাইকগাছার পড়ুয়ারা। পরিবেশ সুরক্ষার দায়িত্ব নিয়েছে নিজেরাই। কেউ গাছের চারা লাগাচ্ছে; কেউ পরিচর্যা করছে। লেখালেখির চর্চা করে অনেকে নিজেদের ভাবনা প্রকাশ করছে। পড়ুয়াদের লেখায়-আঁকায় প্রকাশিত হচ্ছে ব্যতিক্রমী ধারার দেয়াল পত্রিকা। পড়ুয়ারা সবুজের টানে গড়ে তুলেছে সংগঠণ। আর সে সংগঠণের উদ্যোগে বাস্তবায়িত হচ্ছে বিভিন্ন ধরণের কর্মসূচি।

খুলনার পাইকগাছার সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী আরজু সুলতানা হ্যাপি। ‘সবুজ উপকূল’ কমসূচির শুরু থেকেই সে যুক্ত রয়েছে। সৃজনশীল প্রতিযোগিতার অংশ রচনায় প্রথম স্থান এবং কবিতা দ্বিতীয় স্থানের পুরস্কার জিতেছে সে। উপকূল নিয়ে লেখালেখি করে। সেক্ষেত্রে উপকূলের সবুজ বাঁচানোর তাগিদ তুলে ধরে তার কবিতা, রচনা ও প্রতিবেদনে। ইতিমধ্যে তার সহপাঠীরাও তার ইতিবাচক কাজে পাশে দাঁড়িয়েছে। ওদেরকেও সে উপকূলের সবুজ গাছপালা নিয়ে লেখালেখি করার তাগিদ দিচ্ছে।

শহীদ জিয়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে ছাত্রীরা বিদ্যালয়ের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখা ও ক্যাম্পাসের বৃক্ষ নিয়মিত পরিচর্যা করছে। তাছাড়া সংগঠিত হয়ে ধারাবাহিকভাবে বেলাভূমি প্রকাশ অব্যাহত রেখেছে। এ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সবুজ সুরক্ষায় অগ্রণী ভূমিকা রেখে চলেছে।

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় বিগত তিন বছর ধরে বাস্তবায়িত ব্যতিক্রমী কর্মসূচি ‘সবুজ উপকূল’ এভাবেই পাইকগাছার পড়ুয়াদের মেধা ও মনন বিকাশে প্রভাব ফেলেছে। উপকূলের পড়ুয়াদের পরিবেশ সচেতন করে তোলা, সৃজনশীল মেধার বিকাশ আর তথ্যসমৃদ্ধ করে গড়ে তোলার লক্ষ্য সামনে রেখে উপকূল জুড়ে এই কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে সৃজনশীল প্রতিষ্ঠান উপকূল বাংলাদেশ।

উপকূলীয় তরুণদের স্বপ্ন জাগাতে স্কুল ভিত্তিক অনুষ্ঠান ‘সবুজ উপকূল’-এর যাত্রা শুরু হয় ২০১৫ সালে। উপকূল জুড়ে স্কুল পড়ুয়া ছেলেমেয়েদের মাঝে সচেতনতা বাড়ানো এবং সৃজনশীল মেধা বিকাশ এই ব্যতিক্রমী কর্মসূচির অন্যতম লক্ষ্য। “সবুজ বাঁচাই, সবুজে বাঁচি’’ স্লোগান নিয়ে দু’টি প্রতিষ্ঠানেই অনুষ্ঠিত হয়েছিল ‘‘সবুজ উপকূল’’ কর্মসূচি। ২০১৫ ও ২০১৬ সালে উপকূল জুড়ে বাস্তবায়িত এই কর্মসূচির আওতায় ভোলাদাথ সুখদা সুন্দরী মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং ২০১৭ সালে শহীদ জিয়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে সবুজ উপকূল কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। উপকূলের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে পড়ুয়াদের নিয়ে দেয়াল পত্রিকা “বেলাভূমি” প্রকাশ করে। এতে পড়ুয়াদের সৃজনশীল মেধার বিকাশ ঘটছে। আলোকিত জীবন গড়ার স্বপ্ন দেখছে তারা। যা উপকূলকে এগিয়ে নিতে বিরাট ভূমিকা রাখছে।

সবুজ উপকূল কর্মসূচি বদলে দিয়েছে স্কুল পরিবেশ ও পরিবেশ সুরক্ষায় পাইকগাছা উপকূলবাসীর মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে সচেতনতা। সবুজ সুরক্ষায় সৃজনশীল প্রতিযোগিতা, পরিবেশ পর্যবেক্ষণ, র‌্যালী, আলোচনা সভা, গাছের চারা রোপণ ও বিতরণসহ নানান বর্ণাঢ্য আয়োজন। স্কুল পড়ুয়াদের সবুজ বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে রচনা লিখন, কবিতা লিখন, ছবি আঁকা, সংবাদ লিখন, পত্র লিখার মতো সৃজনশীল প্রতিযোগিতা হয়। দেশের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় উপকূল অঞ্চল অনেকটা পিছিয়ে। স্কুল পড়ুয়াদের সৃজনশীন মেধা বিকাশের ও তথ্যে সমৃদ্ধ করে আলোয় আনার মাধ্যম দেয়ালপত্রিকা “বেলাভূমি”। এতে শিক্ষার্থীরা লেখালেখির মাধ্যমে তাদের ভাবনা প্রকাশের সুযোগ পাচ্ছে।

২০১৭ সালে শহীদ জিয়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে সবুজ উপকূল কর্মসূচির বিশেষ অতিথি পাইকগাছা পৌরসভার মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর বলেন, ‘দুর্যোগের আঘাতে উপকূলে ব্যাপক প্রাণহানি ঘটে। উপকূলের পড়–য়ারা সবুজ সম্পর্কে তেমনটা সচেতন নয়। ওদের সচেতন করতে পারলে উপকূলে বাঁচবে, সবুজ বাঁচবে। দুর্যোগের কবল থেকে মানুষ বাঁচবে। আশারাখি, “সবুজ উপকূল” কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। এর মাধ্যমে উপকূলের মানুষের জীবন অনেকটাই নিরাপদ হবে।’

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার ডি-সার্বেল মোহাম্মদ ইব্রাহীম বলেন, ‘এত সুন্দর একটি অনুষ্ঠানে না আসলে আমার অনেক কিছু অজানা থাকতো। সবুজ উপকূল কর্মসূচি বদলে দেবে উপকূলের পরিবেশ। ‘সবুজ উপকূল’ এবং একজন সৃজনশীল মানুষ হিসাবে নিজকে গড়ে তুলতে দেয়াল পত্রিকা ‘বেলাভূমি’ প্রকাশের উদ্যোগ অব্যাহত থাকুক। কেননা, অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি, বিদ্যালয় শিার্থীর মাঝে সৃজনশীলতা আর নান্দনিকতা তৈরিতে একটি ‘সবুজ উপকূল’ কর্মসূচি অব্যাহত রাখাই যথেষ্ট।’

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন পাইকগাছা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট স ম বাবর আলী। সবুজ উপকূল কর্মসূচির মূল্যায়ন করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে তীব্র খরা, অতিবৃষ্টি, জলাবদ্ধতা, ফসলের উৎপাদন কমে যাওয়াসহ নানান বিরূপ প্রভাব পড়ছে জনজীবনে। বিভিন্ন সময়ে ঘূর্ণিঝড় ও দুর্যোগের ক্ষতচিহ্ন উপকূল জুড়ে এখনও স্পষ্ট। এ অঞ্চলের ঝুঁকি মোকাবেলায় সচেতনতা অত্যন্ত জরুরি। জলবায়ু পরিবর্তনে ক্রমাগত হুমকির মুখে উপকূল। ‘সবুজ উপকূল’ কর্মসূচি অব্যাহত থাকলে উপকূল সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। উপকূল সুরক্ষায় রাখবে সহায়ক ভূমিকা।’

তিনি আরও বলেন, ‘উপকূল বাঁচাতে সবুজ বেস্টনি উপকূলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। দুর্যোগের কবল থেকে মানুষ বাঁচবে। আর সবুজ উপকূল কর্মসূচি অব্যাহত থাকলে উপকূল এলাকায় দুর্যোগ মোকাবেলার ঢাল হিসাবে গড়ে উঠবে সবুজ বেস্টনি। আর এর মাধ্যমে উপকূল অঞ্চলের মানুষের জীবন অনেকটাই হবে নিরাপদ।’

//প্রতিবেদন/২৫০৪২০১৮//


এ বিভাগের আরো খবর...
‘কুকরির জনারণ্যে সম্প্রীতির সুবাতাস’ -আবুল হাসেম মহাজন ‘কুকরির জনারণ্যে সম্প্রীতির সুবাতাস’ -আবুল হাসেম মহাজন
বরগুনায় বাণিজ্যিক সূর্যমুখী চাষে লাভবান কৃষক বরগুনায় বাণিজ্যিক সূর্যমুখী চাষে লাভবান কৃষক
উপকূলের উদীয়মান সংবাদকর্মী ছোটন সাহা’র ছুটে চলার গল্প উপকূলের উদীয়মান সংবাদকর্মী ছোটন সাহা’র ছুটে চলার গল্প
কমলনগরে পড়ুয়াদের সবুজ জগত, অনুপ্রেরণায় ‘সবুজ উপকূল’ কমলনগরে পড়ুয়াদের সবুজ জগত, অনুপ্রেরণায় ‘সবুজ উপকূল’
শ্যামনগরে পড়ুয়ারা গড়ে তুলেছে পরিবেশ সুরক্ষা আন্দোলন শ্যামনগরে পড়ুয়ারা গড়ে তুলেছে পরিবেশ সুরক্ষা আন্দোলন
জনতার প্রিয় মানুষ এমপি মুকুল জনতার প্রিয় মানুষ এমপি মুকুল
একুশে বইমেলায় সাংবাদিক ছোটন সাহার ‘মেঘের আঁধারে’ একুশে বইমেলায় সাংবাদিক ছোটন সাহার ‘মেঘের আঁধারে’
‘সমৃদ্ধশালী মডেল ঢালচর গড়তে চাই’ : আবদুস সালাম হাওলাদার ‘সমৃদ্ধশালী মডেল ঢালচর গড়তে চাই’ : আবদুস সালাম হাওলাদার
কুয়াকাটায় জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক সাংবাদিক প্রশিক্ষণ সমাপ্ত কুয়াকাটায় জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক সাংবাদিক প্রশিক্ষণ সমাপ্ত

পাইকগাছার পড়ুয়ারাদের প্রকৃতিপাঠ, সবুজে গড়ছে জীবন
(সংবাদটি ভালো লাগলে কিংবা গুরুত্ত্বপূর্ণ মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।)
tweet

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)