জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বাড়ছে জোয়ারের পানি

- মো. জুনাইদ আল-হাবিব

উপকূল জুড়ে জোয়ারের পানিকমলনগর, লক্ষ্মীপুর : বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের নদীমাতৃক এলাকা উপকূল। উপকূলকে আমাদের চেনার প্রধান ৩টি নির্দেশক বিদ্যমান। ১) বাতাসের গতিবেগ; ২) জোয়ার-ভাটার প্রভাব; এবং ৩) লবণাক্ততার প্রভাব। এসব এলাকায় বর্তমানে নদীভাঙ্গা সমস্যাটিই অন্যতম।

সমদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির ফলে লক্ষ করা যাচ্ছে জোয়ার-ভাটার অত্যধিক স্রোত। তৎকালীন জোয়ারের প্রভাব আর বর্তমানের জোয়ারের প্রভাব অধিক ভিন্নতর। আগে যদি ৫টি এলাকায় জোয়ার প্রবেশ করত এখন প্রবেশ করে ১০টি এলাকায়।এর কারণ হিসেবে দাড়াঁয় প্রতিবছর বৃদ্ধি পাওয়া সমদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা।

এসব কারণে প্রতিবছর ঘুর্নিঝড়ের সময় ব্যতিত জোয়ারের পানির অত্যধিক স্রোত হচ্ছে।প্রতিবছর জোয়ারের পানি বৃদ্ধির প্রধান অন্যতম কারণ হচ্ছে মেরু অঞ্চলে বরফ গলছে। শীত এবং গ্রীষ্ম মৌসুমের জলীয়বাষ্পগুলো মেরু অঞ্চলে জমাট বাঁধে।ফলে সৃষ্টি হয় হিমবাহ বরফের।

মানবসৃষ্ট গ্রীনহাউজ গ্যাসের তীব্রতার কারণে এসব মেরু অঞ্চলের বরফ গলে বর্তমানে জলোচ্ছাসের সৃষ্টি হচ্ছে। এই বিপুল পরিমাণ বরফ-গলা পানি নতুন করে সমুদ্রে যাওয়াতে বছর বছর সমুদ্রপৃষ্ঠ আশাঙ্কাজনকভাবে উঁচু হতে থাকবে। সুদূর মেরু অঞ্চলকে পানিতে ডুবিয়ে নিশ্চিহ্ন করে দেবার জন্যই যথেষ্ঠ। আর বরফ গলে যাবার হার দ্রুত বেড়ে যদি শুধু গ্রীনল্যান্ডের পুরো জমা বরফ পানিতে যাবার মতো অবস্থা যদি কোনোদিন হয় তা হলে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা ৭/৮ মিটার বেড়ে অকল্পনীয় ভয়াবহ অবস্থা সৃষ্টি হবে বিশ্ব উপকূলে। এসব বিষয়ে কথা হয় তিনজন বয়স্কের সাথে।

পূর্ব উপকূল লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের মেঘনাতীরবর্তী গ্রামের মো. আবদুল করিম(৭২) জানান, আমরা বিভিন্ন সময় জোয়ারের প্লাবন লক্ষ করলে দেখি ঘুর্নিঝড় কিংবা আবহাওয়ার সর্তকতার সংকেত থাকে তাহলে সর্বোচ্চ বেগে জলোচ্ছাস হয়। পুরো গ্রাম তলিয়ে যায়। আগের যুগে জোয়ারের পানি কম ছিলো স্রোতও কম ছিলো। কিন্তু এখন জোয়ারের উচ্চতা যেমন বৃদ্ধি পাচ্ছে তেমনি অধিক স্রোতে এলাকাগুলো পানি প্রবেশ করছে।

কমলনগরের মধ্যমার্টিনের মো.ইসমাইল হোসেন (৬১) জানান,আগে নদী অনেক দূরে ছিলো।আমরা নদীর পানি তেমন দেখতাম না। কিন্তু,নদীভাঙ্গতে ভাঙ্গতে এখন আমাদের বাড়ির পাশে তাই সামান্য জোয়ার হলেই বাড়িতে ঢুকে পড়ে। তিনি জানান, এই উপকূলে নেই কোন মজবুত বেড়িবাঁধ,রয়েছে বেড়িবাঁধ সংকটও।অন্যদিকে ভাঙ্গন অব্যাহত থাকায় তৎকালীন যানচলাচল নির্বর খালগুলো ভরাট হয়ে গেছে।এতে দূরবর্তী স্থানে পানি পৌঁছাতেও পারছেনা।
এদিকে উপকূলে সবুজ বনায়ন যেমন ধ্বংস করা হচ্ছে তেমনি গ্রীণহাউজ গ্যাস প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।সাধারণত শিল্প-কারখানার বর্জ্য,আর বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্যের অপব্যবহারের ফলে এই গ্যাসটির তীব্রতা বৃদ্ধি পায়। কিন্তু কোনমতে উপকূলে সবুজ বনায়ন রক্ষা করা যাচ্ছেনা। মানুষ সবুজ উপকূলকে যে ধ্বংস করে নিজের পায়ে নিজে কুড়াল নিক্ষেপ করছে তা কিন্তু কখনো ভাবেনা।

সবুজ বনায়ন যেমনি গ্রীণহাউজ গ্যাসকে উত্তাল হতে দেয়না,তেমনি সবুজ বনায়নের ফলে,উপকূলবর্তী মানুষগুলো তাদের জীবনকে রক্ষা করতে সক্ষম হয় এবং জোয়ারের পানির ক্ষতিকর দিক থেকে মানুষকে রক্ষা করে। এসব সমস্যার কারণে বিশেষজ্ঞ মহল বলছে বর্তমানে বিশ্বে জলবায়ু সমস্যার কারণ বিশ্ব উষ্ণতা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

ফলে, একারণে মেরু অঞ্চলে গলছে বরফ,বাড়ছে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা। এতে, সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বাড়ছে জোয়ারের উচ্চতা ও অত্যধিক স্রোত। অতএব, এসব সমস্যা থেকে আমাদের বাঁচতে হলে নিশ্চয় সবুজ আন্দোলনের কোন বিকল্প নেই।

//প্রতিবেদন/উপকূল বাংলাদেশ/০৪০৭২০১৬//


এ বিভাগের আরো খবর...
পর্যটকের ভিড় বাড়ছে লক্ষ্মীপুরের মতিরহাট মেঘনাতীরে পর্যটকের ভিড় বাড়ছে লক্ষ্মীপুরের মতিরহাট মেঘনাতীরে
আলোকযাত্রা দলের উদ্যোগে হাসি ফুটলো কমলনগরের মেঘনাপাড়ের শিশুদের মুখে আলোকযাত্রা দলের উদ্যোগে হাসি ফুটলো কমলনগরের মেঘনাপাড়ের শিশুদের মুখে
‘সবুজ উপকূল’ বদলে দিচ্ছে উপকূলের পরিবেশ ‘সবুজ উপকূল’ বদলে দিচ্ছে উপকূলের পরিবেশ
পাইকগাছায় আলোকযাত্রা দলের উদ্যোগে বিশ্ব বাবা দিবস পালিত পাইকগাছায় আলোকযাত্রা দলের উদ্যোগে বিশ্ব বাবা দিবস পালিত
অভিনয়ের মাঝেই বেঁচে থাকতে চাই | আজম খান অভিনয়ের মাঝেই বেঁচে থাকতে চাই | আজম খান
ঈদের ৪ টেলিফিল্ম, ৩ নাটকে আজম খান ঈদের ৪ টেলিফিল্ম, ৩ নাটকে আজম খান
ওরা সুযোগ চায়, আলোকিত মানুষ হতে চায়! ওরা সুযোগ চায়, আলোকিত মানুষ হতে চায়!
মিজানের বাঁচার আকুতি! মিজানের বাঁচার আকুতি!
হাতিয়া ভাঙ্গন | তামজিদ উদ্দীন হাতিয়া ভাঙ্গন | তামজিদ উদ্দীন
উপকূল সুরক্ষায় ১২ জরুরি বিষয়ে নজর দিন উপকূল সুরক্ষায় ১২ জরুরি বিষয়ে নজর দিন

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বাড়ছে জোয়ারের পানি
(সংবাদটি ভালো লাগলে কিংবা গুরুত্ত্বপূর্ণ মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।)
tweet

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)